টাকার জন্য ভাঙছে হৃদয়

41

অনলাইনে কারও সঙ্গে সম্পর্কে জড়ানোর আগে সাবধান থাকুন। সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অনলাইন ডেটিং বা অনলাইনে সম্পর্কের ক্ষেত্রে অপরপক্ষের অ্যাকাউন্টটি প্রকৃত অ্যাকাউন্ট কি না, তা যাচাই করতে ভুলবেন না। তা না হলে বিপদে পড়তে পারেন। কারণ, অর্থ হাতিয়ে নিতে ভুয়া প্রেমের ফাঁদ পেতে অনলাইনে বসে রয়েছে সাইবার দুর্বৃত্তের দল।

এমনই একটি স্ক্যাম দলের নাম ‘স্কারলেট উইডো’। এটি মূলত নাইজেরিয়াভিত্তিক রোমান্স স্ক্যাম পরিচালনাকারী একটি সাইবার দুর্বৃত্তের দল। তারা অনলাইনে একাকী, প্রেমে উৎসাহী এমন ঝুঁকিপূর্ণ মানুষকে লক্ষ্য করে প্রেমের জাল পাতে।

সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান আগারি ডেটা ইনকরপোরেশন সম্প্রতি ‘স্কারলেট উইডো’ স্ক্যাম দলটি নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনটিতে ওই গ্রুপের সদস্যদের অনলাইন ফাঁদ সম্পর্কে তথ্য উঠে এসেছে। গতকাল ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইনস ডে উপলক্ষে ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করে আগারি।

আগারির বরাতে প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট দ্য ভার্জ জানিয়েছে, নাইজেরিয়ার প্রতারক চক্র স্কারলেট উইডো। তারা মেইলসহ অনলাইনে নানা উপায়ে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের ফাঁসানোর কাজ করে। অনলাইনে সম্পর্ক করতে মানুষের আবেগকে কাজে লাগানোর উদ্দেশ্যে বিভিন্ন সাইটে ভুয়া অ্যাকাউন্ট খুলে রাখে।

মূলত অনেক ডেটিং সাইট ও অ্যাপে স্কারলেট উইডোর সদস্যদের অ্যাকাউন্ট থাকে। এর বাইরে একাকী, সম্পর্ক ভেঙে যাওয়া ব্যক্তি, শারীরিকভাবে অক্ষম ব্যক্তির মতো বিশেষ ব্যক্তিদের জন্য তৈরি সাইটেও তারা অ্যাকাউন্ট খুলে রাখে। ২০১৫ সাল থেকে এ কার্যক্রম শুরু করে ওই দলটির সদস্যরা। ওই অ্যাকাউন্টগুলো বিশ্বাসযোগ্য করে তোলে। এ ছাড়া প্রেমের ফাঁদে ফেলার জন্য নানা উপায় বের করে। বেশি প্রশ্ন করতে দেয় না, নানাভাবে ভুলিয়ে রাখে। অনেক সময় নিজেদের যুক্তরাষ্ট্র বা উন্নত কোনো দেশের নাগরিক বলে পরিচয় দেয়। একবার কাউকে ভোলাতে পারলে নানা উপায়ে অর্থ চেয়ে বসে। কখনো ভ্রমণের খরচ দেওয়ার কথা বলে তো কখনো কেনাকাটার খরচের কথা বলে।

আগারি দাবি করেছে, স্কারলেট উইডোর সঙ্গে কাজ করা তিনজনকে তারা শনাক্ত করেছে। তবে ওই গ্রুপটি কতজনকে বা কোন কোন দেশে প্রতারণার ফাঁদ পেতেছে, সে সম্পর্কে কিছু জানায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ট্রেড কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালে ২১ হাজার রোমান্স স্ক্যামের ঘটনায় ১৪ কোটি ৪৩ লাখ মার্কিন ডলার খোয়ানোর ঘটনা ঘটেছে, যা ২০১৫ সালে ছিল তিন কোটি ৩০ লাখ ডলার।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অনলাইনে ভুয়া প্রেমের ফাঁদে পড়ার হাত থেকে রক্ষা পেতে সচেতন থাকতে হবে। এ ধরনের প্রতারণার হাত থেকে রক্ষার জন্য কোনো অ্যাকাউন্ট সন্দেহ হলে তার ছবি গুগলে সার্চ দিতে পারেন। এ ছাড়া তার কথাবার্তার ধরন লক্ষ করতে পারেন। যদি কাউকে না দেখে থাকেন বা অপরিচিত কাউকে টাকা পাঠানোর আগে চিন্তা করে দেখুন। ই–মেইল, মেসেঞ্জার বা হোয়াটসঅ্যাপে কারও আবেগের কথাবার্তায় ভুলবেন না।