কলকাতায় শুরু হলো ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসব’

Avatar
মেসবা-উর রহমান, নিজস্ব প্রতিবেদক
৫:৫১ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৯

চিত্রনায়িকা জয়া আহসান বললেন, ‘আমাদের দুই দেশের মধ্যে যে সংস্কৃতির বন্ধন গড়ে উঠেছে, সেই বন্ধনকে কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে আটকানো যাবে না।’ আর চিত্রনায়ক ফেরদৌস বললেন, ‘চলচ্চিত্রই পারে আমাদের মনের বিভেদকে দূর করতে, আমাদের মনকে বিশাল করতে, আমাদের মানুষ হিসেবে গড়তে।’ গতকাল শুক্রবার বিকেলে কলকাতার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নন্দন-২ মিলনায়তনে শুরু হলো দ্বিতীয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসব। এই উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন তাঁরা। বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারতের বাংলা ছবির দর্শকদের কাছেও তাঁরা সমান জনপ্রিয়।

চার দিনের এই উৎসব উদ্বোধন করেছেন বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘এই উৎসব আমাদের দুই দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে আরও সমৃদ্ধ করবে। বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ককে আরও দৃঢ় করবে। আমাদের ভাষা ও সংস্কৃতি যেখানে এক, সেখানে শুধু রাজনৈতিক সীমারেখা কোনো শিল্পকর্ম বা সংস্কৃতিকে বিভক্ত করতে পারে না। তাই তো আমরা দুই দেশ আজও আমাদের সংস্কৃতিকে ধারণ করে আছি। গর্ব করি।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব, আইসিসিআর দিল্লির মহাপরিচালক রিভা গাঙ্গুলি দাস। বিশেষ অতিথি ছিলেন কলকাতার প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা গৌতম ঘোষ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশের উপহাইকমিশনার তৌফিক হাসান। স্বাগত ভাষণ দেন কলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশ উপহাইকমিশনের প্রথম সচিব (প্রেস) মোফাখখারুল ইকবাল। উৎসব আয়োজন করেছে কলকাতার বাংলাদেশ উপহাইকমিশন। সহযোগিতা করছে বাংলাদেশের তথ্য মন্ত্রণালয়।

বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গে তৈরি বাংলা ছবির বাজারকে আরও বিস্তৃত করা এবং বাংলা ছবিকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব বলেন, ‘শুধু সিনেমা নয়, সিনেমার পাশাপাশি আমাদের দুই দেশকে সাহিত্য এবং সংস্কৃতি নিয়ে ভাবতে হবে। এগিয়ে নিতে হবে আমাদের দুই দেশের পর্যটনশিল্পকেও।’ তিনি শিলিগুড়ির বাগডোগরা-ঢাকার মধ্যে বিমান চালুর প্রস্তাব দেন।

পরিচালক গৌতম ঘোষ বলেন, ‘বাংলা চলচ্চিত্রশিল্পকে সমৃদ্ধ করতে এবং আমাদের বাংলা চলচ্চিত্রকে বিস্তৃত করতে দুই দেশকেই উদ্যোগ নিতে হবে। চলচ্চিত্র বিনিময় বাড়াতে হবে। দুই দেশের সিনেমাশিল্পকে আরও সমৃদ্ধ করতে যত্নবান হতে হবে চলচ্চিত্রের কারিগরদের। বাণিজ্যিক লভ্যাংশ যথাযথভাবে দুই দেশের মধ্যে প্রদান করার বিষয়টিও দেখতে হবে।’

আইসিসিআর দিল্লির মহাপরিচালক রিভা গাঙ্গুলি দাস বলেছেন, ‘ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক আজ নতুন উচ্চতায়। দায়িত্ব নিয়ে আমি ঢাকায় গিয়ে ভারতীয় চলচ্চিত্র উৎসব করার উদ্যোগ নেব। পাশাপাশি আমাদের দুই দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক বন্ধন আরও দৃঢ় করার উদ্যোগ নেব।’ জানা গেছে, বিভা গাঙ্গুলি দাস ভারতীয় হাইকমিশনার হিসেবে বাংলাদেশে নিযুক্ত হয়েছেন।

উৎসবে বাংলাদেশের ২৩টি ছবির প্রদর্শনী হচ্ছে। গতকাল উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রামাণ্য চলচ্চিত্র ‘আমাদের বঙ্গবন্ধু’ দেখানো হয়। উৎসব চলবে নন্দনের দুটি প্রেক্ষাগৃহ এবং নজরুল তীর্থর একটি প্রেক্ষাগৃহে। উৎসবের ছবিগুলো হলো ‘পুত্র’, ‘আমাদের বঙ্গবন্ধু’ (প্রামাণ্য চলচ্চিত্র), ‘পোস্টমাস্টার ৭১’, ‘স্বপ্নজাল’, ‘দহন’, ‘রাজনীতি’, ‘হেডমাস্টার’, ‘জীবন ঢুলি’, ‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’, ‘ঘেটুপুত্র কমলা’, ‘নুর মিয়া ও তার বিউটি ড্রাইভার’, ‘ গহীন বালুচর’, ‘আলফা’, ‘জান্নাত’, ‘জন্মভূমি’, ‘রাজপুত্র’, ‘পাঠশালা’, ‘সনাতন গল্প’, ‘মহুয়া সুন্দরী’, ‘জাগে প্রাণ পতাকায় জাতীয় সংগীতে’, ‘খাঁচা’, ‘গেরিলা’ ও ‘চিত্রা নদীর পাড়ে’।

মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here