মার্কিন ব্যবসায়ীদের চীন ছাড়তে বললেন ট্রাম্প

52

চীন থেকে মার্কিন কোম্পানিগুলোর সঙ্গে সঙ্গে দেশটির ব্যবসায়ীরাও যেন তাদের প্রতিষ্ঠান গুটিয়ে নেন; এমনটাই আহবান জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। যদিও তিনি এখনও আসন্ন বাণিজ্য যুদ্ধ ইস্যুতে চীনের সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত রাখার বিষয়ে একমত।

এদিকে বেইজিং থেকেও জানানো হয়, পণ্যের মেধাস্বত্ত্ব নিয়ে দুই দেশের মধ্যে বর্তমানে এক বিরাট দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়েছে। এবার তা নিরসনের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাদের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যেতে সম্মতি জানিয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার (১৪ মে) স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় এক টুইট বার্তায় প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনের সঙ্গে আসন্ন বাণিজ্য চুক্তির বিষয়ে আশা প্রকাশ করেছেন। যদিও এতে তিনি তার ‘আমেরিকা ফাস্ট’ এজেন্ডার কথাও সকলকে স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। তিনি মার্কিন কোম্পানিগুলোকে তার পাশে থাকার আহবান জানিয়ে বলেছেন, ‘আপনার চীন থেকে নিজেদের ব্যবসা গুটিয়ে আনুন।’

টুইট বার্তায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, ‘খুব শিগগিরই চীনের সঙ্গে একটি বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর হবে। আমার বিশ্বাস চুক্তিটি এত দ্রুতই হবে যা দুদেশের জনগণ ভাবতেও পারবে না। তাছাড়া আগামী জুনে অনুষ্ঠিত জি-২০ সম্মেলনে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিন-পিংয়ের সঙ্গে আমার এক বিশেষ সাক্ষাৎ হতে পারে।’টুইটারে একটি পোস্টে ট্রাম্প এও বলেছিলেন, ‘চীন এখন নিজেদের পতন মোকাবেলায় তাদের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে চাইবে। তখন যদি তাদের ফেডারেল রিজার্ভে টান পরে তাহলে খেলা শেষ, আমরা জিততে পারি!’

এদিকে চীনের সঙ্গে বৈঠকে অংশ নেওয়া মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধিরা জানান, চীনা সরকার যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চলমান বাণিজ্য চুক্তিতে স্বাক্ষর করতে বিলম্ব করছে। যে কারণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশটির ওপর অতিরিক্ত ২০০ বিলিয়ন ডলারের শুল্ক বাড়িয়ে ২৫ শতাংশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। যা আগামী ১৭ জুন একটি গন শুনানির মাধ্যমে কার্যকর করা হবে।

হোয়াইট হাউস জানায়, চীনা পণ্যের ওপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন করে আরোপিত শুল্কে সেলফোন এবং ল্যাপটপকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। যদিও এতে আগের মতো ঔষধকে বাদ দেওয়া হবে।

অপর দিকে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গেং শুয়াং বলেছিলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র এই আলোচনা চালিয়ে যেতে সম্মত হয়েছে। যেহেতু এ বিষয়ে তারা তাদের মত দিয়েছেন; তাই আমাদের বিশ্বাস, উভয় পক্ষ খুব শিগগিরই আলোচনার মাধ্যমে একটি সমাধানে পৌছাতে পারবে।’

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই মুখপাত্র আরও বলেন, ‘আশা করছি, যুক্তরাষ্ট্র এই পরিস্থিতিকে আর ঘোলাটে করবে না। কারণ তারাও সমাধান চায়।’

সূত্র:বিবিসি নিউজ

মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here