স্কুলছাত্রীকে তিন দিন ধর্ষণ করে বাড়ির সামনে ফেলে গেল ধর্ষক

Avatar
নিজাম উদ্দিন, সিনিয়র রিপোর্টার
১০:২৩ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৩, ২০১৯

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে এক স্কুল ছাত্রীকে স্কুলে যাওয়ার সময় জোরপূর্বক অপহরণ করে আটকিয়ে রেখে তিন দিন ধরে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় ধর্ষিতার বড় ভাই আবুল কাশেম বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে বৃহস্পতিবার রাতে হাজীগঞ্জ থানায় মামলা করেছে।

মামলায় আসামিরা হলো সাখাওয়াত হোসেন, তার বড় ভাই মীর হোসেন ও তাদের বাবা মো. আবদুল লতিফ।

উপজেলার গন্ধর্ব্যপুর উত্তর ইউপির জগন্নাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী ওই ছাত্রী প্রতিদিন স্কুলে আসা যাওয়ার পথে একই ইউপির মোহাম্মদপুর গ্রামের পূর্ব ফরাজী বাড়ির আবদুল লতিফের ছেলে বখাটে সাখাওয়াত শিক্ষার্থীকে প্রেম নিবেদন করতে বিভিন্ন কু-প্রস্তাব দিতো। বিষয়টি ওই ছাত্রী তার পরিবারের লোকজনকে জানালে, পরিবারের পক্ষ থেকে বখাটে সাখাওয়াতের পরিবারসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অবহিত করা হয়। তার পরেও সাখাওয়াত থামেনি।

গত ২৯ জুলাই দুপরে ওই ছাত্রী স্কুলে যাওয়ার পথে সাখাওয়াতসহ কয়েকজন ওই ছাত্রীকে নেশা জাতীয় দ্রব্য দিয়ে অচেতন করে সিএনজিতে করে অপহরণ করে। পরবর্তী ছাত্রীর জ্ঞান ফিরলে সে বুঝতে পারে একটি বহুতল ভবনের বন্ধ ঘরে সে আছে। সাখাওয়াত অপহরণ করে তাকে চট্রগ্রামে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে কয়েকবার ধর্ষণ করে।

১ আগস্ট ভোর ৪টায় ওই নির্যাতিত ছাত্রীকে অচেতন অবস্থায় তাদের গ্রামের বাড়ীর সম্মুখে এনে ফেলে দিয়ে যায়। বাড়ির লোকজনের চিৎকারে তাকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যায়। কিছুক্ষণ পর তার জ্ঞান ফিরলে সে পরিবারের সবাইকে ঘটনাটি খুলে বলে।

এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার ওসি আলমগীর হোসেন রনি জানান, এ ঘটনায় তিনজনকে আসামি করে নির্যাতিত ছাত্রীর বড় ভাই মামলা করেছে। ভিকটিমকে মেডিকেল করানোর জন্য চাঁদপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। আসামিদের ধরার জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।

মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here