বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে জবির সাংবাদিকতা বিভাগের ৮ম ব্যাচের র‍্যাগ ডে অনুষ্ঠিত

ক্যাম্পাসের প্রথম দিনের স্মৃতি মানসপটে এখনও ভেসে উঠে। বড্ড একা ছিলাম আমি। কিন্তু আজ বিদায় বেলায় সেই আমি বন্ধু, বড় ভাই, ছোট ভাই সহ প্রিয়জনদের একটি দীর্ঘ তালিকার অধিকারি। সোমবার (৩নভেম্বর) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ‍অষ্টম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের র‍্যাগ ডে এভাবেই স্মৃতিচারণ করেন স্নাতক সমাপনী শিক্ষার্থী আশিকুজ্জামান।

দুইদিন ব্যাপী (রবিবার -সোমবার) সমাপনী অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে বর্ণিল আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে গতকাল (রবিবার-৩নভেম্বর) ফ্ল্যাশ মব পুরান ঢাকার আহসান মঞ্জিল ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় পর্বে আজ (সোমবার-৪ নভেম্বর) সকাল ৯.৩০ মিনিটে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষা শহীদ রফিক ভবনের সামনে থেকে একটি শোভাযাত্রা বের হয়ে সম্পূর্ণ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে ভাষ্কর্য চত্বরে এসে শেষ হয়।

পরে কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে (অডিটোরিয়ামে) একটি আলোচনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বক্তব্য রাখেন। আলোচনা সভার শুরুতে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে ঘটে যাওয়া নানা স্মৃতি তুলে ধরেন।
আলোচনাসভায় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক ও অতিথিরা সাংবাদিকতার বর্তমান বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ নিয়ে আলোচনা করে স্নাতক সমাপনী শিক্ষার্থীদের উদ্যেশ্য বলেন, ‘সংবাদে বস্তুনিষ্ঠতা রেখে পরিবেশনা করলে কখনো পিছনে ফিরতে হবে না’। সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে পড়াশোনা শেষে এ পেশায় অনেক দেওয়ার আছে।’

অডিটোরিয়ামে সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক ও ৮ম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা

 

আলোচনা সভায় গনযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ৮ম ব্যাচের পক্ষ থেকে প্রকাশিত ‘সম্প্রীতির-০৮’ স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন করে শিক্ষার্থীদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন বিভাগের শিক্ষক ও অতিথিরা।
পরে সেই স্মরণিকাটি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড.
মীজানুর রহমান, রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো: ওহিদুজ্জামান এবং জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তরের পরিচালক মিল্টন বিশ্বাসের হাতে তুলে দেন বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

এমসিজে স্মরণিকা-২০১৯ (২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের প্রকাশনা)

 

আয়োজনের শেষ পর্যায়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে একটি মনোরম ও আকর্ষণীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। এসময় শিক্ষার্থীদের নাচ, গান, কবিতা আবৃত্তির মধ্যে দিয়ে পুরো অডিটোরিয়ামে উৎসবের আমেজ তৈরি হয়েছিল।

মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here