হাজীগঞ্জে কেরোসিন ঢেলে আগুনে দগ্ধ মাদ্রাসাছাত্রীর মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার, জেলা প্রতিনিধি কুমিল্লা
প্রকাশিত: ১০:০০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১২, ২০২০

বাসায় দেরিতে আসায় মা বকা দিয়েছে। তাতে রাগ করে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় মাদ্রাসাছাত্রী সিপা (১৭)। এতে দগ্ধ হয় সে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা গেছে।

রোববার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।


পুলিশ জানায়, শনিবার বিকালে বাসায় ঢুকে মায়ের বকুনি খেয়ে কেরোসিন ঢেলে নিজের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয় সিপা। তাকে প্রথমে গুরুতর আহত অবস্থায় হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

শনিবার রাতে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে সিপাকে চিকিৎসা দেয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি দেখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। রোববার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেলে তার মৃত্যু হয়।

সিপা হাজীগঞ্জ দারুল উলুম আহমাদিয়া কামিল মাদ্রাসার ১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। তার গ্রামের বাড়ি হাজীগঞ্জ উপজেলার ৬নং বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের কাইজাঙ্গা গ্রামে। তার বাবা প্রবাসী দেলোয়ার হোসেন। তারা হাজীগঞ্জ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের ট্রাকরোডে একটি ভাড়া বাসায় থাকত।

হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক অংশুমান পাল বলেন, ‘আগুনে মেয়েটির শরীর প্রায় সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। বাঁচার কোনো লক্ষণ ছিল না। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কুমিল্লা প্রেরণ করেছি।’

ঘটনা জানার পর জানতে চাইলে সিপারের মা শিল্পী বেগম বলেন, বাসায় আসতে কেন দেরি হল- জানতে চাইলে রেগে গিয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে তাকে উদ্ধার করে হাজীগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করি তার অবস্থা বেগতিক দেখে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাই।

রোববার সন্ধ্যায় হাজীগঞ্জ থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন রনি জানিয়েছেন, পুড়ে যাওয়া আহত সিপা সন্ধ্যায় ঢাকা হাসপাতালে মারা গেছে।

বাংলাদেশ/স্টাফ/রিপোর্টার