মাগুরায় ক্লিনিক মালিকের লাশ নিয়ে টানাহেঁচড়া!

স্টাফ রিপোর্টার, জেলা প্রতিনিধি ফরিদপুর
প্রকাশিত: ৯:৪৯ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২০

দুই পরিবারের বিরোধে মাগুরার সেবা ক্লিনিকের মালিক কামরুজ্জামান স্বপনের (৫২) লাশ গেল হিমঘরে। সোমবার বিকাল সাড়ে ৫টায় মৃত্যু হলেও রাত ১২টা পর্যন্ত লাশ পড়ে থাকে বাড়ির সামনে।

স্ত্রী রিক্তা পারভিন লাশ দাফনের চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত নিহতের মা-ভাইয়ের আপত্তির কারণে পুলিশ খাটিয়া থেকে লাশ তুলে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে গেছে।


মাগুরা টিবি ক্লিনিকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী (মেড ব্রাদার) কামরুজ্জামান স্বপন শহরের পিটিআই পাড়ার গোলাম খানের ছেলে। বেশ কিছুদিন ধরে তিনি তার দ্বিতীয় স্ত্রী রিক্তা পারভিনকে নিয়ে শহরের হাসপাতাল পাড়ায় প্রতিষ্ঠিত সেবা ক্লিনিকের দ্বিতীয় তলায় বসবাস করতেন।

সোমবার সকালে হঠাৎ করেই রিক্তা পারভিন নিজেদের ক্লিনিকের ম্যানেজার আশরাফকে দিয়ে স্বপনকে ফরিদপুর ডায়াবেটিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। সেখানেই বিকাল সাড়ে ৫টায় তার মৃত্যু হয়।

এদিকে কামরুজ্জামান স্বপনের মৃত্যুর পর দ্বিতীয় স্ত্রী রিক্তা পারভিন শ্বশুরবাড়ির লোকদের এড়িয়ে লাশ দাফনের চেষ্টা চালায় বলে অভিযোগ করেছেন তার মা হালিমা খাতুন এবং ভাই মিল্কি খান।

মিল্কি খান বলেন, আমার বড় ভাই স্বপন বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ। তাকে দেখতে চাইলে রিক্তা পারভিন বাড়িতে ঢুকতে দেয় না। তার সম্পত্তির লোভে ভাইকে নিয়মিত ইনজেকশন দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে রাখে। সোমবার সকালে মারধর পর্যন্ত করেছে যে কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।

স্বপনের মা হালিমা খাতুন বলেন, ছোট বউ আমার ছেলের সম্পত্তি জালিয়াতি করে লিখে নিয়েছে। এখন তাকে মেরে ফেলে গোপনে দাফন করার চেষ্টা করছিল।

তবে স্বপনের মা-ভাইয়ের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্ত্রী রিক্তা পারভিন। তিনি জানান, তার স্বামী ডায়ালোসিসের রোগী। অনেকদিন ধরেই অসুস্থ। সোমবার সকালে বেশি অসুস্থ হয়ে পড়লে ১১টার দিকে তাকে ফরিদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

কোনো মারধরের ঘটনা নেই। কার্ডিয়াক ফেইলিউরের কারণে স্বামীর মৃত্যু হয়েছে এমন দাবি করে রিক্তা পারভিন স্থানীয় সাংবাদিকদের সামনে ফরিদপুর ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দেয়া ডেথ সার্টিফিকেট উপস্থাপন করেন।

এদিকে হাসপাতালটির নেফ্রোলজি বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডা. রেবেকা সুলতানা স্বাক্ষরিত ওই মৃত্যু সনদ থেকে দেখা যায়, কামরুজ্জামান স্বপনকে গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর দুপুর ২টায় সেখানকার ডায়ালাইসিস ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর স্বপন কুমার মন্ডলের অধীনে চিকিৎসাধীন সোমবার বিকাল সাড়ে ৫টায় তার মৃত্যু হয়েছে।

এ অবস্থায় সোমবার সকালে অসুস্থ স্বপনকে ফরিদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালে নিয়ে যাবার বিষয়ে প্রতিবেশীরাও নিশ্চিত করেছেন। অথচ দীর্ঘ এক মাসেরও বেশিদিন ধরে সেখানে ভর্তি থাকার সনদ এবং রিক্তা পারভিনের কথা বার্তার অসংলগ্নতার বিষয়টি জানিয়ে স্বপনের পরিবারের সদস্যরা থানায় অভিযোগ দেয়।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে রাত ১২টার পর দাফনের জন্য প্রস্তুত স্বপনের লাশ সদর থানা পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে সদর থানার ওসি সাইফুল ইসলাম জানান, লাশের সুরতহাল থেকে সন্দেহজনক তেমন কিছু পাওয়া যায়নি। তবে নিকটাত্মীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। মেডিকেল পরীক্ষার পর মৃত্যু নিয়ে কোনো প্রশ্ন দেখা দিলে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট মামলা নেয়া হবে।

বাংলাদেশ/স্টাফ/রিপোর্টার